বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

পর্দার অন্তরালে চলছে রাজনৈতিক সমঝোতা !

SONALISOMOY.COM
ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৬

নিউজ ডেস্ক: ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর বিএনপি জোটের টানা অবরোধ ও হরতালে দেশ অচল হয়ে পড়ে। হানাহানি আর সহিংসতা নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়েছিল তখন। তিন মাসের সহিংসতায় মারা গিয়েছিল ১৬৮ জন মানুষ। আর এটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারছিল না রাজনৈতিক নেতারা। দফায় দফায় বৈঠক করে কোন ফল আসেনি। সরকারদলীয় মন্ত্রী ও নেতারা তখন বারবারই বলেছিল বিএনপি জোট সহিংসতা বন্ধ করলে তাদের সঙ্গে রাজনৈতিক সংলাপ হতে পারে। আর এ লক্ষেই এখন পর্দার অন্তরালে চলছে রাজনৈতিক সমঝোতা।

বিএনপি নেত্রীকে উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, তার খুনের মিশন বন্ধ করতে হবে। তাকে কেউ মানুষ মারার লাইসেন্স দেয়নি। যদি তাদের সংলাপে বসার সে ধরনের কোন আগ্রহ থাকে, তবে আগে হত্যা ও জ্বালাও-পোড়াও বন্ধ করতে হবে। কারণ জঙ্গিবাদের কোন স্থান বাংলাদেশে নেই।

bull-bangladesh1-superJumbo-v2
শুরু থেকেই অবিলম্বে গঠনমূলক সংলাপে বসে সব দলের অংশগ্রহণে একটি বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন দিতে সরকারের প্রতি জোর তাগিদ দিয়েছেন বিদেশি কূটনীতিকরা। তারা সহিংসতা নিয়ন্ত্রণ করে বিরোধী দলের প্রতি ভয়-ভীতি না দেখানো ও রাজনৈতিক কর্মকা-ে বাধা না দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন সরকারকে। ২০১৪ সালে ১৬ জানুয়ারি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে বৈঠকে বিদেশি রাষ্টদূতগণ এ আহ্বান জানান।

বৈঠকে শেষে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, বিদেশি বন্ধুদের সহযোগিতা আগের সরকারের মতো অব্যাহত থাকবে। কি পরিস্থিতিতে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন করতে হয়েছে তা কূটনীতিকদের জানিয়েছি। তারা সংলাপের তাগিদ দেন। সরকার সংলাপে প্রস্তুত। জামায়াতের সঙ্গ ছাড়লে বিএনপির সঙ্গে সংলাপ হবে।

দেশের চলমান পরিস্থিতিতে সহিংসতা বন্ধ হলে সাংবিধানিক কাঠামোর মধ্যে থেকে আলোচনা হতে পারে বলে বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী। তিনি বলেছিলেন, সহিংসতা যদি বন্ধ না হয় তাহলে কোনো সংলাপ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। কারণ সংলাপ ও সহিংসতা একসাথে হতে পারে না।

সংলাপ চাইলে খালেদা জিয়াকে ছাড়তে হবে জঙ্গিবাদ, রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধীদের সঙ্গ। অগণতান্ত্রিক, অসাংবিধানিক ও সহিংসতার পথ পরিহার করে গণতন্ত্র ক্লাবের সদস্য হতে হবে। আর তখনই তার সঙ্গে সংলাপ হতে পারে। ২০১৫ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত ‘মিট দ্য রিপোর্টাস’ অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেছিলেন, দেশে বর্তমানে গণতন্ত্র আর সহিংসতার লড়াই চলছে। এখানে তেলে-জলে মেশে না। গণতন্ত্রকামী ও সহিংসতাকারী একসঙ্গে চলতে পারে না। তিনি বলেন, দেশ এক ভয়াবহ সঙ্কটের মুখে পড়েছে। এই সঙ্কট থেকে উত্তরণে বিএনপিকে জামায়াত ছাড়তে হবে। ‘৭২-এর সংবিধানের ওপর সব রাজনৈতিক দলের অভিন্ন আনুগত্য থাকতে হবে। এ পথেই একটি রাজনৈতিক সমাধান হতে পারে। ২০১৫ সালে ৭ মার্চ রাজধানীর ঝিগাতলায় নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের তিনি একথা বলেন।

সহিংসতার পথ পরিহার করলে বিএনপির সঙ্গে সংলাপ হতে পারে, বলেছিলেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। ২০১৫ সালের ২ ফেব্রুয়ারি সোমবার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে এক সমাবেশে তিনি এই কথা বলেন। সন্ত্রাস ও সহিংসতা চলমান থাকলে সেই পরিস্থিতিতে সংলাপ হতে পারে না। কারণ এ অবস্থায় সরকার যদি সংলাপে বসে তাহলে আগামী দিনে সন্ত্রাসীরা আরো উৎসাহিত হবে। তাদের মধ্যে এ ধারণা বদ্ধমূল হবে যে সন্ত্রাস করলে সরকার আপস করতে বাধ্য হয়। ২০১৫ সালের ৭ মার্চ রাজধানীর লেকশোর হোটেলে আয়োজিত ‘সহিংসতা জঙ্গিবাদ সংলাপ ও বাস্তবতা’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা এ মন্তব্য করেন।

২০১৪ সালের ৭ জানুয়ারি ধানম-িতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কার্যালয়ে দলের এক বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের বলেন, “এই নির্বাচন প্রহণযোগ্য হয়নি, এটা বলা যাবে না; তবে সর্বজনগ্রাহ্য হয়নি, এটা বলা যায়।” তবে নির্বাচন সর্বজনগ্রাহ্য না হওয়ার জন্য বিরোধী জোটকেই দায়ী করেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “বিএনপির সঙ্গে সংলাপ হতে পারে, তবে তাদের সহিংসতার পথ ছাড়তে হবে। তারা সহিংসতা ছাড়লে অবশ্যই সংলাপের উদ্যোগ নেয়া হবে। প্রয়োজনের সমঝোতা করে নির্বাচন করা হবে।”
তখন বিএনপি সংলাপে শর্ত জুড়ে দেয়ার জন্য সংলাপ ও সমঝোতা আর হয়নি। এরপর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করলে বিএনপি জোট নির্বাচনে আসার ঘোষণা দেন। বিএনপি সিটি নির্বাচনে যোগ দিলে আন্দোলন স্তিমিত হয়ে যায় কিন্ত তখনও তারা আন্দোলন স্থগিত করেননি।

এরপর থেকেই সরকার বিএনপিকে রাজনৈতিক সভা ও সমাবেশ করার সুযোগ করে দেয়। বিএনপিও তাদের রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করে। বিদেশিদেরকে রাজনৈতিক অবস্থানের কথা বলতে থাকে। সর্বশেষ পৌর নির্বাচনে সরকার সমর্থকদের ব্যাপক কারচুপির ভিডিওসহ খবর তারা বিদেশিদের কাছে তুলে ধরেন। বেগম খালেদা জিয়া কূটনৈতিক লবিং করার জন্য ৫ জন সিনিয়র নেতাকে দায়িত্ব দেন।

বিএনপি সরকারের সঙ্গে সমঝোতা ও কূটনৈতিকদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন। তার চান হানহানি ছাড়াই একটা রাজনৈতিক সমঝোতা করতে। সরকারও চায় রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা। এজন্য বিএনপিকে অনেকটা ছাড়ও দিতে চায় তারা।
বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক আভাস দিচ্ছে রাজনীতির জন্য ‘অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ’ এ বছর। গতিপথ পাল্টাতে পারে ‘নতুন ধাঁচের’ রাজনীতি।

একাধিক বিকল্প নিয়ে নড়াচড়া হচ্ছে পর্দার অন্তরালে উদয় হতে পারে নতুন দৃশ্যপটের, ঘটতে পারে ভাঙ্গা-গড়ার খেলা। তবে সমঝোতা, বিয়োজন না কাটছাঁট-এটি এখনও আপেক্ষিক। কারণ রাজনীতির দৃশ্যমান পর্দা সাদাকালো মনে হলেও একাধিক বিকল্প নিয়ে নড়চড় ঘটছে পর্দার অন্তরালে। এই নড়চড় দেশের গ-ি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায় পর্যন্ত বিস্তৃত। নড়চড় শেষে শেষ দৃশ্য কী হয়, সেটিই দেখার বিষয়। সব মিলিয়ে বছরটি ঘটনাবহুল হবে- এমন সম্ভাবনার আভাস মিলছে বিভিন্ন সূত্র থেকে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন চলতি বছরে রাজনীতিতে ‘ইতিবাচক’ পরিবর্তনের ইঙ্গিত দেখছেন। ইত্তেফাকের সঙ্গে আলাপকালে এই ইতিহাসবিদ বলেন, ‘২০১৬ সালে রাজনীতির সূচনা মোটামুটি আশাপ্রদ। দশম সংসদ নির্বাচনের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতে প্রধান দুটি রাজনৈতিক পক্ষ এবার ভিন্ন শিরোনামে উদ্যাপন করলেও তা ছিল শান্তিপূর্ণ। এটা শুভ লক্ষণ। এরপর থেকে রাজনীতি এখন পর্যন্ত স্থিতিশীল। এর একটি বড় কারণ হলো— সাংগঠনিকভাবে বিএনপি যথেষ্ট দুর্বল। জামায়াতের অবস্থাও কাহিল, দলটির শীর্ষ নেতারা দ-িত-অভিযুক্ত। এর মধ্যে মার্চ-এপ্রিলে বড় দলগুলোর কাউন্সিল অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি দেখছি।

সবকিছু মিলিয়ে নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতিতে ফিরে আসার একটা উদ্যোগ আমি দেখছি।’ রাজনীতির অন্দর-মহলের খবরাখবর রাখেন বা রাখার চেষ্টা করেন এমন কয়েকজনের অভিমত, ২০১৬ সাল যে ঘটনাবহুল ও রাজনীতির জন্য খুবই তাৎপর্যপূর্ণ এর কিছু আলামত পুরোপুরি স্পষ্ট না হলেও একেবারে অস্পষ্টও নয়, ধূসর বলা যেতে পারে। চলতি বছরে রাজনীতিতে এক ধরনের ‘সমঝোতা’র আভাস দেখছেন তারা। বিশেষ করে, দশম সংসদ নির্বাচনের প্রথম বর্ষপূর্তিকে ঘিরে ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারি থেকে বিএনপি জোট যেভাবে সরকার পতনের আন্দোলনে চলে গিয়েছিল, এবার দ্বিতীয় বছরে এসে বিএনপিকে সেখান থেকে ইউ-টার্ন নিতে দেখা গেল।

সরকারবিরোধী আন্দোলন থেকে বিএনপির ‘আপাতত’ বিরত থাকা, এমনকি আন্দোলন নিয়ে দলটির এখন আর তেমন ‘রা’ না করার বিষয়টিও সমঝোতার ইঙ্গিতবহ। এছাড়া পৌরসভা নির্বাচনের পর দলটির নীরবে ফল মেনে নিয়ে চুপচাপ থাকা, নির্বাচন নিয়ে তেমন কোনো উচ্চবাচ্য না করা এবং সর্বশেষ ৫ জানুয়ারি নয়াপল্টনের সমাবেশে দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সমঝোতাধর্মী বক্তব্যকে ঘিরে এক ধরনের রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে রাজনীতিতে। দীর্ঘ সাড়ে চার বছর পর বিএনপিকে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করতে দেয়ার মধ্যদিয়ে সরকারেরও বিএনপিকে এক ধরনের ‘স্পেস’ দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু বলে মনে করা হচ্ছে।

সরকারের পক্ষ থেকে সবাই মিলে রাজনীতিকে এগিয়ে নেয়ার আহ্বান এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ও ছাত্রদলের সভাপতিসহ বিএনপির উল্লেখযোগ্য কয়েক নেতার জামিনে কারামুক্ত হওয়ায় রাজনৈতিক এই রহস্যের ঘনত্ব বেড়েছে। পৌরসভা নির্বাচনের আগে দেশব্যাপী ২০ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীদের যে ধরপাকড় চলছিল, সেটিও প্রায় থেমে গেছে। এরমধ্যেই দেশের ভেতরে-বাইরে আওয়ামী লীগ-বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ কয়েক নেতার যোগাযোগের ঘটনা এই রহস্যকে গভীরতা দিয়েছে।

রাজনীতির অলি-গলির খবর রাখেন, এরকম দু’-একজনের দাবি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একজন গুরুত্বপূর্ণ উপদেষ্টা সম্প্রতি লন্ডনে বসবাসরত বিএনপির হাইপ্রোফাইল এক নেতার সঙ্গে চা-চক্রে বসেছিলেন। এই চা-চক্রটি ‘হঠাৎ দেখা’ ধরনের বা আকস্মিক ছিল না। পূর্ব যোগাযোগের ভিত্তিতে সময় নির্ধারণ করেই এর আয়োজন করা হয়। এই আয়োজনে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করেন ওই উপদেষ্টার এক আত্মীয়, যিনি বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে। এছাড়াও আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দায়িত্বশীল একাধিক নেতার সাম্প্রতিক সময়ে ভারতসহ পশ্চিমা কয়েকটি দেশে যাতায়াত ও সেসব দেশে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাতের খবরও অনেকের জানা।

আওয়ামী লীগ-বিএনপির দায়িত্বশীল এসব নেতার দেশে-বিদেশে আলোচনার মূল বিষয়বস্তু ছিল একাদশ সংসদ নির্বাচন। প্রধানমন্ত্রীর ওই উপদেষ্টা বিএনপির হাইপ্রোফাইল নেতাকে জানান- নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থায় ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই, বর্তমান সরকারও সেই পথে আর পা বাড়াতে রাজি নয়। সবার অংশগ্রহণে আগাম নির্বাচন চাইলে সংবিধানের বিদ্যমান ব্যবস্থার মধ্যেই হতে হবে। বড়জোর নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভা নিয়ে আলোচনা হতে পারে। এসব বিষয়ে সমঝোতা হলে ফলাফলও মেনে নেয়ার মানসিকতা থাকা অপরিহার্য। বিএনপির পক্ষ থেকে এ বিষয়ে সায় পাওয়া গেলে বিষয়টি নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করা যেতে পারে।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টার এসব বক্তব্যের জবাবে লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির এক নেতা বলেছেন ‘আন্দোলন নয়, সবার অংশগ্রহণে একটি বিশ্বাসযোগ্য ও অবাধ নির্বাচনই তাদের মূল দাবি। এক্ষেত্রে আগের কাঠামোর মত পুরোপুরি নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহালও তারা চাচ্ছেন না। সরকারের পক্ষ থেকে অবাধ নির্বাচনের নিশ্চয়তা পাওয়া গেলে সমঝোতার বিষয়ে বিএনপি এগিয়ে আসতে রাজি আছে।’

বিএনপির একাধিক গুরুত্বপূর্ণ নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে- দলের সাংগঠনিক অবস্থা, দলীয় প্রধানসহ নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলার গতিপ্রকৃতি, স্থানীয় ও ভূ-রাজনীতির গতিধারাসহ সবকিছু মিলিয়ে উদ্ভূত পরিস্থিতি থেকে বের হয়ে আসতে চাচ্ছে দলটি। মোটামুটি অবাধ নির্বাচন হলে প্রয়োজনে বিরোধী দলে বসতেও তেমন আপত্তি নেই। বিএনপির এই নেতারা আরো জানান, সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনায় দলটি এখন সংসদে ফিরতে চায়। সরকার গঠনের সুযোগ পেলে ভালো, তা না হলে অন্তত বিরোধী দল হিসেবে হলেও সংসদে যেতে চায় দলটি। এক্ষেত্রে অন্তত দল বড় ধরনের বিপর্যয় থেকে আপাতত রক্ষা পাবে বলে মনে করছেন বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির দুজন সদস্য বলেন, চলতি বছরটিকে তাদের কাছেও খুব গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচিত হচ্ছে। ২০১৯ সালের আগে সংসদ নির্বাচন নয়-মুখে এমন কথা বললেও ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন, পৌরসভা নির্বাচন এবং আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পর সরকার হয়তো এ বছরেই আগাম জাতীয় নির্বাচনের চিন্তা-ভাবনা করতে পারে। এই নেতার দাবি, বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যেও এই ধরনের বিশ্বাস জন্মেছে। দলটির বিভিন্ন স্তরের নেতাদেরও ধারণা, এ বছর রাজনীতিতে নাটকীয় কিছু ঘটতে পারে।

চলতি বছরকে ঘিরে এমন সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দিতে চান না ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইব)-এর নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামানও। ইত্তেফাকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, ‘৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর থেকে স্বল্প সময়ের মধ্যে আরেকটি নির্বাচন দেয়ার চিন্তা-ভাবনা সরকারের মধ্যে শুরু থেকেই ছিল। এখনও সেই সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায় না। তবে ঠিক কবে, কখন সেটি বলা কঠিন। এ বছর যদি দেশে একটি জাতীয় নির্বাচন হতে দেখি তাহলে আমি অবাক হব না, আবার না হলেও অবাক হব না।’

সমঝোতার আভাসের পাশাপাশি রাজনীতির পর্দার অন্তরালে বিপরীত কথাবার্তাও শোনা যাচ্ছে। বিশেষ করে, জিয়া অরফানেজ ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে চলমান বিচার কাজ এবং মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা দায়ের ও আগামী ৩ মার্চ আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ- সমঝোতার বিপরীত ইঙ্গিত দেয়। দলীয় প্রধানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা নিয়ে বিএনপিও নতুন করে দুশ্চিন্তায়।
এছাড়া বিএনপিতে ভাঙ্গন ধরারও নানা আলামত ঘূর্ণায়মান। অন্যদিকে, বিএনপির জোটেও অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশ এরই মধ্যে জোট ছেড়ে গেছে। এর আগে ন্যাশনাল পিপ্লস পার্টির (এনপিপি) একাংশও বিএনপির সঙ্গ ত্যাগ করেছে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, চলতি বছরে বিএনপি ও দলটির নেতৃত্বাধীন জোটের রাজনীতিতেও নতুন নতুন দৃশ্য দেখা যেতে পারে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দল শরিক জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল ইক ইনুও দু’দিন আগে বলেছেন, বিএনপি থাকবে কিনা সেই সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় এখনই। আওয়ামী লীগ নেতা ও খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেছেন, বিএনপি ভেঙ্গে টুকরা টুকরা হয়ে যাবে। আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফও সম্প্রতি এই ধরনের ইঙ্গিত দিয়েছেন। ক্ষমতাসীন দল-জোটের এসব নেতার বক্তব্যে, অদূর ভবিষ্যতে রাজনীতিতে সমঝোতার পরিবর্তে অন্যকিছুর উপাদান মেলে।

এদিকে, বর্তমান সংসদে প্রধান বিরোধী দলের আসনে থাকা এরশাদের জাতীয় পার্টিতে (জাপা) সৃষ্ট অস্থিরতাকে শুধুমাত্র দলটির অভ্যন্তরীণ বিষয় হিসেবে দেখছেন না রাজনীতি অভিজ্ঞরা। তাদের মতে, বিএনপির বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত কী হবে, সেদিকে প্রখর নজর রেখেছেন এরশাদও। পরিস্থিতির আলোকেই সময়ে-সময়ে তিনি কখনও সরকারের পক্ষে বলছেন, কখনও সরকারকে এক হাত নিচ্ছেন। আবার এরশাদ জাপাকে মন্ত্রিসভা থেকে বের করে আনার কথা বলেও সরকারের ওপর এক ধরনের চাপ সৃষ্টির কৌশল নিয়েছেন বলেও মনে করা হচ্ছে।

বিভিন্ন সূত্রের দাবি, পর্দার অন্তরালে কোথাও সরকারের সঙ্গে বিএনপির যোগাযোগ হচ্ছে এমন খবর পাওয়া মাত্রই সরকারের সমালোচনায় জ্বলে ওঠেন এরশাদ। কারণ এরশাদ চান, বিএনপিকে সাইডলাইনে রেখে নিজের দলকে সামনে রাখতে। শুধু এরশাদই নন, ১৪ দলের দু’-একটি শরিকও এই কৌশল নিয়েছে। রাজনীতিতে বিএনপিকে ‘স্পেস’ দেয়ার পক্ষে নন তারা।

তাদের ধারণা, বিএনপিকে ছাড় দেয়া হলে রাজনীতিতে তারা আবারও গুরুত্বহীন হয়ে পড়তে পারেন। মোট কথা, সবাই যার যার কৌশলে খেলছেন। এই খেলার একটি ফলাফল দেখা যেতে পারে এ বছর। তবে সেই ফলাফল কী হতে পারে, সে বিষয়টি এখনও স্পষ্ট নয়।
আমাদের সময়.কম