বুধবার, ৬ নভেম্বর, ২০১৯

আতংক উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় বিএনপির নয়াপল্টন কার্যালয়ে

SONALISOMOY.COM
ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক : সম্প্রতি জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি গঠনের পর থেকে ছাত্রদলের পদবঞ্চিতরা বিদ্রোহ করে আসছে। এদিকে বিদ্রোহীদের ঠেকাতে প্রতিদিন নয়াপল্টনে শোডাউন করে বিক্ষোভ মিছিল করছে নবগঠিত কমিটির নেতারা। তবুও বিদ্রোহীদের আতংকে উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠা কাটেনি বিএনপির নয়াপল্টন কার্যালয়ে।bnp-off_naya_660_367

জানা যায়, কমিটি ঘোষণার পর নানা অসঙ্গতির অভিযোগ এনে কমিটিতে পদপ্রাপ্ত কয়েকজন নেতা বিদ্রোহ করে কার্যালয়ে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়। এসময় জিয়াউর রহমানের ম্যুরাল ভাংচুর ও খালেদা জিয়ার ছবিতেও আগুন দেন তারা। পরবর্তীতে পূর্ণাঙ্গ কমিটির নেতারা নয়াপল্টনে পাহারা বসায়। সে ধারা এখনো অব্যহত রেখেছেন তারা। নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে বিদ্রোহীদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটিয়েছেন নবগঠিত কমিটির নেতারা। সোমবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা গেছে, আজও নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়েছেন নবগঠিত কমিটির নেতারা। কার্যালয়ে যাতে ফের হামলার মুখে না পড়ে এজন্যই অবস্থান অব্যাহত রেখেছেন তারা।

তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিদ্রোহী নেতা ইসহাক সরকার ও রাকিবুল ইসলাম রয়েল আপাতত নয়াপল্টন কার্যালয়ে অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত করেছেন। তবে যে কোন সময় কমিটি বাতিলের দাবিতে ফের আন্দোলন শুরু করতে পারেন বলেও জানান তারা। এদিকে নয়াপল্টন কার্যালয়ে হামলার পর বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছিলেন, সরকারের এজেন্টরা হামলা করে নয়াপল্টন কার্যালয়ে আগুন দিয়েছে। জানা গেছে, ছাত্রদলের বিদ্রোহীরা এ হামলা চালিয়েছেন এটা জানার পরও রিজভী এমন বক্তব্য দিয়েছেন। এজন্য সাংগঠনিকভাবে ইসহাক সরকার ও রাকিবুল ইসলাম রয়েলের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক কোন ব্যবস্থা নিতে পারেননি শীর্ষ কর্তারা।

তবে কার্যালয়ে আগুন লাগানোর মতো নজিরবিহীন এ ঘটনায় ক্ষুদ্ধ হয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। সময় ও পরিস্থিতি বুঝে অভিযুক্ত নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় স্যার এ এফ রহমান হলের সদস্য সচিব মমিনুল ইসলাম জিসান বলেন, দুর্বৃত্তরা নয়াপল্টন কার্যালয়ে আঘাত করার চেষ্টা করছে। তাই কেন্দ্রীয় কার্যালয় রক্ষার জন্য আপাতত নয়াপল্টনে অবস্থান নিয়েছি।

কবি জসিম উদ্দিন হল শাখা ছাত্রদলের সদস্য সচিব সোহেল রানা জানান, যে ক্যাম্পাসে রাজনীতি করার দায়িত্ব পেয়েছি, সেখানে অবশ্যই যাবো। তবে নয়াপল্টনে যেহেতু ঝামেলা হচ্ছে ,তাই নৈতিক জায়গা থেকেই এখানে অবস্থান নিচ্ছি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কেন্দ্রীয় এক নেতা বলেন, নয়াপল্টন কার্যালয়ে দিনদুপুরে যেভাবে আগুন জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে তাতে উৎকণ্ঠায় থাকাটা খুবই স্বাভাবিক।

ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি রাজীব আহসান বলেন, কার্যালয়ে যারা অগ্নিসংযোগ করেছেন তাদেরকে শাস্তি পেতেই হবে। ছাত্রদলের নবগঠিত কমিটি ও রাজধানীর বিভিন্ন ইউনিটের নেতারা নিয়মিত নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেবে বলেও জানান তিনি।