শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

রাসুল (সা) অবমাননাকারি সেই ইসলাম বিদ্বেষী প্রকাশক একজন বামপন্থী তাত্ত্বিক!

SONALISOMOY.COM
ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১৬

নিউজ ডেস্ক: নবীজীর (সা.) নামে কটূক্তি করে বিতর্কিত বই লিখে সাম্প্রদায়িক ঘৃণা ছড়ানোর অভিযোগে বামপন্থী তাত্ত্বিক শামসুজ্জোহা মানিকসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে শাহবাগ থানা পুলিশ।
এর মধ্যে ৭৩ বয়সী মানিক হলেন বিতর্কিত বইটির সম্পাদক ও ব-দ্বীপ প্রকাশনীর মালিক। অন্য দুজন হলেন প্রকাশনীর কর্মকর্তা ফকির তসলিম উদ্দিন কাজল (৫৩)ও লেখক শামসুল আলম চঞ্চল (৫১)।BD
মানিকের গ্রেপ্তার হওয়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের বামপন্থী আন্দোলনের পরাজিত হওয়ার পুরনো স্মৃতি নতুন করে সামনে এল। বিপুল জনসমর্থন পাওয়ার পরেও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ ও আশির দশকের বিপ্লবী লড়াইগুলোতে বামপন্থীরা বিজয়ের মুখ থেকে সরে গিয়েছিল শুধু এ দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানদের বিশ্বাস-মূল্যবোধ-সংস্কৃতির বিরুদ্ধে নাহক বিদ্বেষ চর্চার কারণে।
একুশ শতকে সাম্রাজ্যবাদ-সম্প্রসারণবাদের আগ্রাসনের কারণে বাংলাদেশে যখন গণমুক্তির সংগ্রামে বামপন্থী আন্দোলনে নতুন সম্ভাবনা হয়ে হাজির হচ্ছিল তখনো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ার অন টেরর প্রজেক্টের তাবেদার হিসেবে বামপন্থীরা নাস্তিকতার নামে ইসলাম বিদ্বেষে লিপ্ত হয়। যার জের ধরে দেশে জঙ্গীবাদের বিস্তার ঘটে এবং বেশ কয়েকজন তরুণ নিহতও হয়।
তারপরেও একজন প্রবীণ বামপন্থী তাত্ত্বিক হয়েও মানিক বিতর্কিত বই লিখে সাম্প্রদায়িক ঘৃণা ছড়ানোর কাজে নামলেন।
উল্লেখ্য, সোমবার ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার অভিযোগে বইমেলার ব-দ্বীপ প্রকাশন এর স্টল (১৯১) বন্ধ করে দেওয়া হয়।
এরপর ওই প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত ‘ইসলাম বির্তক’ বইয়ের সম্পাদনাকারী শামসুজ্জোহা মানিকসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ (২) ধারায় একটি মামলা (নম্বর-২৩) দায়ের করেছেন শাহবাগ থানার এসআই মাসুদ রানা।
এ বিষয়ে শাহবাগ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো.জাফর আলী বিশ্বাস জানান, তারা বই লেখে ওয়েবসাইটে ছেড়ে দিয়েছেন। আমরা বিষয়টি জানতে পেরে বইসহ তাদের গ্রেফতার করি।
তিনি আরো জানান, সোমবার ব-দ্বীপ প্রকাশনীর স্টলে পুলিশি অভিযান চালানো হয়। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, বিশেষ করে ফেসবুক থেকে পুলিশ জানতে পারে, ব-দ্বীপ প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত প্রবন্ধ সংকলন ‘ইসলাম বিতর্ক’ বইটিতে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার মতো লেখা আছে। বাংলা একাডেমিকে বিষয়টি জানালে তারা স্টলটি বন্ধের নির্দেশ দেয়।
এ সময় স্টলে থাকা ‘ইসলাম বিতর্ক’ বইটির ৬ কপি পুলিশ জব্দ করে। বইটি সম্পাদনা করেছেন শামসুজ্জোহা মানিক।
এছাড়া, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার মতো লেখা আছে কি-না, তা অনুসন্ধান করতে একই প্রকাশনী থেকে আরো পাঁচটি বই জব্দ করেছে পুলিশ।
বইগুলো হলো- শামসুজ্জোহা মানিক ও শামসুল আলম চঞ্চল রচিত ‘আর্যজন ও সিন্ধু সভ্যতা’, এম এ খান অনূদিত ‘জিহাদ : জবরদস্তিমূলক ধর্মান্তরকরণ, সাম্রাজ্যবাদ ও দাসত্বের উত্তরাধিকার’, শামসুজ্জোহা মানিকের ‘ইসলামের ভূমিকা ও সমাজ উন্নয়নের সমস্যা’, একই লেখকের প্রবন্ধ সংকলন ‘ইসলামে নারীর অবস্থা’ এবং ‘নারী ও ধর্ম’। ব-দ্বীপ প্রকাশনীর স্টলে প্রদর্শিত এ বইগুলোর সব কপি জব্দ করেছে পুলিশ।
স্টল বন্ধের পর শাহবাগ থানার ওসি আবুবকর সিদ্দিক সাংবাদিকদের বলেন, বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, বিশেষ করে ফেসবুক থেকে আমরা জানতে পারি, ব-দ্বীপ প্রকাশনীতে এমন কিছু বই প্রদর্শিত হচ্ছে যেগুলোর মাধ্যমে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করা হয়েছে। পরে অনুসন্ধানে বিতর্কিত লেখার প্রমাণ পাওয়া গেছে।
তিনি বলেন, ‘ইসলাম বিতর্ক’ বইটিতে মহানবী (সা.) সম্পর্কে আপত্তিকর লেখা পাওয়া গেছে। এ কারণে বইটি জব্দ করা হয়েছে ও মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদের সঙ্গে কথা বলে স্টলটি বন্ধ করা হয়েছে।
অন্য পাঁচটি বই জব্দ প্রসঙ্গে আবু বকর সিদ্দিক বলেন, এ বইগুলোতেও বিতর্কিত লেখা আছে কি-না তা অনুসন্ধান করার জন্যই সেগুলো জব্দ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে বইমেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ বলেন, পুলিশ আমাদের বলেছে, ব-দ্বীপ প্রকাশনীর স্টলে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার মতো বই প্রদর্শিত হচ্ছে। স্টলটি নিরাপত্তার জন্য হুমকিস্বরূপ। এ কারণে প্রকাশনীটির স্টল বন্ধ করা হয়েছে।উৎসঃ অনলাইন বাংলা