বুধবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৯

জঙ্গিদের নিয়ে বাড়িমালিকের মেয়ের ভাষ্য

SONALISOMOY.COM
ডিসেম্বর ২৪, ২০১৬
news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর উত্তরার আশকোনার সূর্য ভিলায় পুলিশের অভিযানের পর জঙ্গিদের নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন বাড়িমালিকের বড় মেয়ে জোনাকী রাসেল।

কুয়েত প্রবাসী বাড়িওয়ালা জামাল উদ্দিনের মেয়ে জোনাকী রাসেল  জানান, প্রায় চার মাস আগে ছোট পরিবারের কথা বলে ইমতিয়াজ নামে এক ব্যক্তি ঘর ভাড়া নেন। কথা ছিল তিনি, তার স্ত্রী এবং এক ছোট ছেলে থাকবেন। ইমতিয়াজ অনলাইনে ব্যবসা করেন বলে তার পেশার বিবরণ দেন।

‘আমি দুবার তাদের বাসায় গিয়েছিলাম। একবার গ্যাসের লাইনের সমস্যার কারণে আরেকবার পানির সমস্যার কারণে। দেখেছি তারা মেঝেতে ঘুমায়। জানতে চাইলে তারা বলেন, বাসায় বেশি মেহমান আসে তো তাই মেঝেতে ঘুমাতে হয়’, বলেন জোনাকী।

বাড়ির এই ফ্ল্যাটে বসবাসকারীদের জঙ্গিবাদের সঙ্গে সম্পৃক্ততা রয়েছে তা ঘূণাক্ষরেও জানতে পারেননি বলে জানান বাড়ির মালিকের এই মেয়ে।

‘সূর্য ভিলা’র পাশের এক বাড়িতে থাকেন মো. নুর সোবহান রাজীব। জঙ্গিদের আচার-আচরণ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওই বাসাতে যারা থাকতেন, তারা খুব একটা বের হতেন না। বাসায় প্রায়ই অতিথি আসত। অবশ্যই তা স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি। মহিলাদের খুব একটা দেখা না গেলেও মাঝে মাঝে বোরকা পরে মহিলারা আসত। আবার বোরকা পরেই বের হয়ে যেত।

আনুমানিক বেলা আড়াইটায় গুলির আওয়াজে ঘুম ভাঙে জানিয়ে রাজীব বলেন, মুহুর্মুহু গুলির শব্দে বাড়ির বাইরে এসে জানতে পারি পুলিশ জঙ্গিবিরোধী অভিযান চালাচ্ছে।

তার কথা সমর্থন করে স্থানীয় আরেক ব্যক্তি হীরা লাল বলেন, তিনিও ওই সময়েই গুলির আওয়াজ শুনেছেন। এরপরই বাড়ির বাইরে আসেন।

শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার দিকে অভিযান শুরু করে দীর্ঘ প্রায় ১২ ঘণ্টা পর শনিবার বিকেল ৪টায় অভিযান শেষ করে পুলিশ।

অভিযানে ‘আত্মঘাতী বিস্ফোরণে’ জঙ্গিনেতা তানভীর কাদেরীর ১৪ বছরের ছেলে শহীদ কাদেরী এবং জঙ্গিনেতা সুমনের স্ত্রী মারা গেছে। চারজন আত্মসমর্পণ করেছেন। এরা হচ্ছেন- প্রাক্তন মেজর জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী জেবুন্নাহার শীলা ও তার মেয়ে এবং জঙ্গিনেতা মুসার স্ত্রী তৃষ্ণা ও তার মেয়ে। আহত অবস্থায় চার-পাঁচ বছরের একটি শিশুকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছে পুলিশ।