সোমবার, ১৮ জুন, ২০১৮

বিএনপি জামাত বোমাবাজির উন্নয়ন করেছে- শেখ হাসিনা

SONALISOMOY.COM
ফেব্রুয়ারি ২২, ২০১৮
news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বিএনপি-জামায়াতের আমলে মানুষ নিরাপদে চলতে পারতো না। এই রকম একটি অবস্থা তারা সৃষ্টি করেছিলো দেশব্যাপী। উন্নয়ন তারা করতে পারে নাই। তারা কি পেরেছে, বোমাবাজির উন্নয়ন করতে। একই দিনে ৫০০ জায়গায় বোমা হামলা করেছে তারা। আর এই ভাবেই মানুষকে নির্মমভাবে হত্যা করে, বোমাবাজি করে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে। শুধু সাধারণ জনগণকেই না, এমনকি পুলিশকেও রাস্তায় পিটিয়ে হত্যা করেছে তারা।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজশাহী সরকারি মাদ্রাসা ময়দানে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি এ কথা বলেন। বিকেল ৩টা ৫০মিনিটে জনসভা মঞ্চের পাশে রাজশাহীর ৩১টি উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর নাম ফলকের ভিত্তিপ্রস্তরের উন্মোচন ও উদ্ধোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর ৩টা ৫৫ মিনিটে জনসভা মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন তিনি এবং মঞ্চে ওঠে জনতাকে হাত উচিয়ে অভিবাদন জানান। ৪টা ৩০ মিনিটে বক্তব্য শুরু করে ৪টা ৬৯ মিনিটে শেষ করেন।

প্রায় আধাঘন্টার ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতি করেছেন বলেই শাস্তি ভোগ করছেন। আর চোরের জন্য আন্দোলণ করছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এতিমের টাকা লুট করে খেয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, তার পরিবার ও বিএনপির নেতারা। টাকা চুরি করে বিএনপি নেত্রী জেলে গেছেন। আর চোরের জন্য আন্দোলন করছেন তার (খালাদ জিয়া) দলের লোকজন।’

এতিম খানার ঠিকানা কথায় প্রশ্ন করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এতিমদের জন্য কোন টাকা খরচ করা হয়নি। এতিমরা কোন টাকা পায়নি। এখন তিনি (খালেদা জিয়া) বলছেন, এতিমের টাকার সুদ বেড়েছে।’

বিএনপি-জামায়াত সরকারের আমলের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারা ক্ষমতায় এসে রাজশাহী নগরীকে সন্ত্রাসের নগরী সৃষ্টি করে। বাংলা ভাই সৃষ্টি করে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের নির্যাতন ও হত্যা করে।’ বিএনপি-জামায়াত সরকারের আমলে হত্যাকান্ডের শিকার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের নাম উল্লেখ্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

বিএনপি বিদ্যুৎ দিতে পারে নাই; শুধু খাম্বা দিয়েছে বলে উল্লেখ, করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক খাম্বার ব্যবসা করত। সে শুধু খাম্বা দিয়েছে। রাস্তার দুপাশে খাম্বা আর খাম্বা, কিন্তু কোনো বিদ্যুৎ নাই।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে তখন জনগণের উন্নয়ন হয়। আপনারা জানেন বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিলো তখন জনগণ শান্তিতে ছিলো না। তারা কিভাবে রাস্তায় মানুষ হত্যা করেছে, নির্যাতন করেছে আপনারা দেখেছেন। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন তারা মানুষকে শুধু লাশ উপহার দিয়েছিলো। বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন চালিয়ে মানুষের ঘুম ছিনিয়ে নিয়েছিলো তারা। এই জামায়াত-বিএনপির ক্ষমতা থাকাকালীন মানুষ শান্তিতে ঘুমাতে পারতো না। কোনো রকম কল্যাণ তারা করতে পারে নাই। তারা শুধু মানুষকে হত্যা করেছে।’

নুহ নবীর সময় থেকে নৌকা মানুষকে সুরক্ষা করছে উল্লেখ্য করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘নৌকা আপনাদের মার্ক, জনগণের মার্কা’। নৌকা মারকায় ভোট দিয়ে বাংলার মানুষ কথা বলার সুযোগ পায়। দেশের উন্নয়ন হয়। যে উন্নয়ন করছি তা অব্যাহত থাকতে নৌকা মারকায় ভোট চাই। আপনারা ওয়াদা করুন।’

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের সভাতিত্বে জনসভায় বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলির সদস্য প্রফেসর ড. আবদুল খালেক ও প্রফেসর ড. সাইদুর রহমান খান, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, মাহবুব উল আলম হানিফ, আবদুর রহমান, ডা. দীপু মণি, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী সাইফুজ্জামান শেখর, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রাজশাহী-১ আসনের সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী, রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক, রাজশাহী-৫ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল ওয়াদুদ দারা, রাজশাহী সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য আকতার জাহান, আওয়ামী লীগেরর কেন্দ্রীয় সদস্য নূরুল ইসলাম ঠাণ্ডু।

জনসভা পরিচালানা করেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ।

এ জাতীয় আরও খবর