মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৮

চাকরির বয়সসীমা বৃদ্ধির জনপ্রিয় দাবি পূরণে আওয়ামী লীগ

SONALISOMOY.COM
ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১৮
news-image

নিউজ ডেস্ক: তারুণ্য-নির্ভর বাংলাদেশে একজন শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন শেষ করতেই ২৭/২৮ বছর লেগে যায়। এরপর প্রস্তুতি নিয়ে তার আর সরকারি চাকরির জন্য পরীক্ষা দেওয়ারও সুযোগ থাকে না। অনেক তরুণ বয়সের কারণেই সরকারি চাকরিতে আবেদনের সুযোগ হারায়। চাকরিতে বয়সসীমা বৃদ্ধি তাই একটি জনপ্রিয় দাবিতে পরিণত হয়েছে।
বর্তমানে চাকরি প্রার্থীদের চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩০ বছর এবং চাকরি থেকে অবসরের বয়সসীমা ৫৯ বছর থাকলেও উভয়ক্ষেত্রে এই বয়সসীমা আরো বৃদ্ধি করার জনপ্রিয় দাবি বাস্তবায়নের অঙ্গিকার নির্বাচনী ইশতেহারে যুক্ত করতে চায় অওয়ামী লীগ। তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এলে আওয়ামী লীগ সরকার চাকরির এই বয়সসীমা বৃদ্ধির দাবি পূরণ করবে।

জানা যায়, আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রদত্ত প্রস্তাবে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধি করে ৩২ এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষার কারণে বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ও কর্মক্ষমতা বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে চাকরিকালীন সময়কে বৃদ্ধি করে অবসরের বয়স ৬২ বছর করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, ‘মানুষের গড় আয়ু যখন ৪৫ ছিল তখন চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ছিল ২৭ বছর, গড় আয়ু যখন ৫০ ছাড়ালো তখন চাকরিতে আবেদনের সময়সীমা করা হলো ৩০ বছর। বর্তমানে গড় আয়ু ৭২ বছর হলেও চাকরিতে প্রবেশের বয়স একই রয়ে গেছে।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা এই প্রস্তাব অনুমোদন করলেই তা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের নির্বাচনী ইশতেহারে যুক্ত হবে। ফলে তৃতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের সুযোগ পেলেই চাকরি প্রার্থী ও চাকরিজীবীদের এই স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে।