শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৯ ও এস৯ প্লাসে টাচস্ক্রিনে সমস্যা (ভিডিও)

SONALISOMOY.COM
মার্চ ২৬, ২০১৮
news-image

সোনালী সময় ডেস্ক: বহুল আলোচিত ছিল কোরিয়ান জায়ান্টের ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন দুটো। স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৯ এবং গ্যালাক্সি এস৯ প্লাস। গ্লোবাল মার্কেটে প্রভাব ছড়িয়ে দেওয়ার হাতিয়ান ছিল এ দুটো ফোন।

বার্সেলোনায় গত ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে নতুন ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস গ্যালাক্সি এস৯ ও এস৯ প্লাস উন্মোচন করেছে স্যামসাং।কিন্তু ডিভাইস উন্মোচন মাত্র কিছুদিনের মাথায় দুইটি ডিভাইস টাচস্ক্রিন কাজ করছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। ক্রমবর্ধমান গ্রাহক অভিযোগ আমলে নিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে স্যামসাং।

রেডিটসহ আরো কয়েকটি ফোরামে বেশকিছু গ্রাহক অভিযোগ করেন, ডিভাইসটির ডিসপ্লের কিছু অংশে টাচ করলেও সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না। বেশকিছু গ্রাহক ডিভাইসটির ডিসপ্লের ওপরের অংশ কাজ করছে না বলে নির্দিষ্ট করে জানান। অনেকে অভিযোগ করেন, ডিসপ্লের নিচের অংশেও টাচ করলে কাজ করছে না। কয়েক দিন ব্যবহারের পরই এমন সমস্যা দেখা দিয়েছে বলে জানানো হয়।

সিএনবিসি ওয়েবসাইটের এক প্রতিবেদনে বুলেট ফর্মে এ ফোনটি কেনার আগে দুবার চিন্তা করতে বলা হয়েছে। কারণ নতুন অ্যান্ড্রয়েড আপডেটের ক্ষেত্রে স্যামসাং সবচেয়ে স্লো। এর পরিবর্তে অন্য সাশ্রয়ী অশ্রন্ড্রয়েড ফোন দেখতে বলা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকজন নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ দাবি করছেন, স্যামসাং দাবি করছে, এতে সবচেয়ে উন্নত ক্যামেরার পাশাপাশি বেশ কিছু নতুন ফিচার এসেছে। স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৯-এ ইন্টেলিজেন্ট স্ক্যান নামের যে প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে, তা খুব বেশি নিরাপদ নয়।

স্মার্টফোনে ফেস আনলক পদ্ধতি হিসেবে নতুন পদ্ধতি ইন্টেলিজেন্ট স্ক্যান এনেছে স্যামসাং। এটি ফেস রিকগনিশন ও আইরিশ স্ক্যানিং ব্যবহার করে। যদি ফেস রিকগনিশন কাজ না করে, তখন আইরিশ কাজ করে। যদি দুটিতেই কাজ না হয়, তখন উভয় পদ্ধতি ব্যবহার করে স্মার্টফোন খোলা যায়। কিন্তু গবেষকেরা দাবি করছেন, আগের কোনো স্মার্টফোনে ব্যবহৃত নিরাপত্তা পদ্ধতির চেয়ে ইন্টেলিজেন্ট স্ক্যান সিস্টেম দ্রুত কাজ করলেও এটি খুব বেশি নিরাপদ নয়।

প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট সিনেট এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, স্যামসাং এখনো টুডি ফেস স্ক্যানিং পদ্ধতি ব্যবহার করছে। এ পদ্ধতিটি গত বছর গ্যালাক্সি এস৮-এর ক্ষেত্রেও ব্যবহার করেছিল। এ ছাড়া গ্যালাক্সি নোট ৭-এ ব্যবহৃত আইরিশ স্ক্যানিং প্রযুক্তি এস৯-এ ব্যবহার করা হয়েছে। এই দুটি প্রযুক্তি মিলিয়ে ইন্টেলিজেন্ট স্ক্যান প্রযুক্তি দ্রুতগতির বা উন্নত হয়েছে কিন্তু খুব বেশি নিরাপদ হয়নি। এটি এখনো নিখুঁত অর্থ লেনেদেনের মতো প্রযুক্তির ক্ষেত্রে নির্ভরযোগ্য নয়। এর আগে গ্যালাক্সি এস৮-এর ক্ষেত্রে মানুষের মুখের ছবি ব্যবহার করে এ প্রযুক্তিকে বোকা বানানো সম্ভব হয়েছিল। এ ছাড়া আইরিশ পদ্ধতিকেও বোকা বানানো সম্ভব হয়েছিল।

হ্যাকিং গ্রুপ কম্পিউটার ক্যাওস ক্লাবের নিরাপত্তা গবেষক জ্যান ক্রিসলারের বরাত দিয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একটা পুরোনো সিস্টেমকেই নতুন করে আনা হয়েছে মাত্র। এর আগে গ্যালাক্সি এস৮ আইরিশ স্ক্যানিং প্রযুক্তি তাঁরা ভেঙে দেখিয়েছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকজন নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ দাবি করেছিলেন, স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৯-এ ইন্টেলিজেন্ট স্ক্যান নামের যে প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে, তা খুব বেশি নিরাপদ নয়।

স্যামসাং একটি বিবৃতি জানিযেছে যে গ্যালাক্সি এস৯ ও এস৯ প্লাস এর পর্দা সমস্যাগুলির অনুসন্ধান করছে। স্যামসাং বলছে যে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবহারকারীদের স্যামসাংয়ের সরাসরি যোগাযোগ করতে বলা হচ্ছে।

স্যামসাংয়ের সর্বশেষ দুই ফ্ল্যাগশিপ হ্যান্ডসেটের ডিসপ্লে ত্রুটি কতটুকু গুরুতর, তা এখনো স্পষ্ট নয়।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৯ প্লাসে আরো ৫ সমস্যা: