বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

৭১-এর মুজিবনগ সরকারকে গার্ড অব অনার প্রদানকারী লিয়াকত আলী আর নেই

SONALISOMOY.COM
জুলাই ২৯, ২০১৮
news-image

নিজস্ব প্রতিনিধি: ১৯৭১ সালের ১৭ই এপ্রিল মুজিবনগরে বাংলাদেশের প্রথম সরকারকে গার্ড অব অনার প্রদানকারী আনসার সদস্য লিয়াকত আলী (৬৭) মারা গেছেন।

শনিবার ২৮ জুলাই, রাত সাড়ে ১০টার দিকে নিজ বাড়িতে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।
লিয়াকত আলী মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার ভবেরপাড়া গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দিনের ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুর আগে তিনি বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে স্বাধীনতা ও আনসার পদকে ভূষিত হয়েছিলেন।

১৯৭১ সালের ১৭ই এপ্রিল মুজিবনগরে জীবন বাজি রেখে বাংলাদেশের প্রথম সরকারকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন ১২ জন আনসার সদস্য। স্বাধীনতার পর তাঁদের মধ্যে লিয়াকত আলীসহ ৯ জন আনসার সদস্য মারা গেলেন।

জানা গেছে, বেশ কয়েক বছর আগে থেকে আনসার সদস্য লিয়াকত আলী বেশ কয়েকটি রোগে ভুগছিলেন। কয়েক মাস আগে ভারত থেকে উন্নত চিকিৎসা নিয়ে দেশে আসেন।

এরপর বাড়িতে থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করছিলেন তিনি। সন্ধ্যার পর লিয়াকত আলী হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। রাত সাড়ে ১০টার দিকে নিজ বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

তার মৃত্যুর খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোসেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ তাকে দেখতে বাড়িতে যান।

রোববার সকাল ১১টার দিকে তাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্মাননা ও গার্ড অব অনার প্রদান করা হবে। এরপর তাকে দাফন করা হবে বলে জানা গেছে।

৭১-এর ১৭ এপ্রিল তাঁরা বাংলাদেশের প্রথম সরকারকে গার্ড অব অনার প্রদান করেছিলেন। মুজিবনগর সরকারের শপথ গ্রহণ, স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ এবং আতাউল গণি ওসমানীকে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক করাসহ সব কিছুরই প্রত্যক্ষদর্শী হওয়ায় এরা ঐতিহাসিক।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মেহেরপুর জেলার মুজিবনগরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার ঘোষণা ও শপথগ্রহণ করে।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তার অনুপস্থিতিতে উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব নেন। প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পান তাজউদ্দীন আহমদ, মুক্তিবাহিনীর সর্বাধিনায়ক কর্নেল মোহাম্মদ আতাউল গণি ওসমানী, খন্দকার মোশতাক আহমেদ পররাষ্ট্র ও আইনমন্ত্রী এবং ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী অর্থমন্ত্রীর অস্থায়ী দায়িত্ব পান।

পরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও নবগঠিত আনসার বাহিনীর স্থানীয় ১২ জনের একটি দল কর্তৃক গার্ড অব অনার গ্রহণ করে ওই সরকার। পরে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম সভামঞ্চে প্রধান অতিথি হিসেবে আসন গ্রহণ করার পর অন্য নেতারা আসন গ্রহণ করেন।