বুধবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৮

বাগমারায় সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর সেবায় আ’লীগ সরকারের অবদান

SONALISOMOY.COM
অক্টোবর ৪, ২০১৮
news-image

বাগমারা প্রতিনিধি: বর্তমান সরকারের আমলে সমাজসেবা কার্যালয়ের মাধ্যমে সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য বিভিন্ন ধরণের উন্নয়নমুখী কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে। এসব কর্মসূচীর মাধ্যমে একদিকে জনগনের উন্নয়ন হয়েছে অন্যদিকে নানা কর্মসংস্থানও সৃষ্টি হয়েছে । সমাজ এবং দেশের পিছিয়ে পড়া অবহেলিত মানুষের সেবায় সমাজসেবা কার্যালয়ের মাধ্যমে নানামূখী সেবা মূলক কর্মকান্ড পরিচালনা ও বিভিন্ন ধরণের ভাতা প্রদান করা হয়েছে গত দশ বছরে। সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মধ্যে দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা, প্রতিবন্ধী, বিধাব, বয়স্ক ও এতিমসহ বিভিন্ন প্রকার ভাতা প্রদান করা হয়েছে।

বর্তমান সরকারের আমলে উপজেলার ৩৮৬ জন মুক্তিযোদ্ধার মধ্যে ২১৭ জন মুক্তিযোদ্ধাকে ২ কোটি ৬০ লাখ ৪০ হাজার টাকা ভাতা প্রদান করা হয়েছে। বর্তমান সরকারের ১০ বছরে বাগমারায় ৪৯৫০ জন বয়স্ক ব্যক্তিকে ২৯ কোটি ৭ লাখ টাকা বয়স্কভাতা, ২৬১৩ জন বিধবাকে ১ কোটি ৫৬ লাখ ৭৮ হাজার টাকা বিধবাভাতা, ১৬৬ জন প্রতিবন্ধীকে ১ কোটি ৪০ লাখ দুই হাজার আট শত টাকা প্রতিবন্ধীভাতা, এবং ১৫৪ জন শিক্ষার্থীকে শিক্ষা উপবৃত্তি বাবদ ৯ লাখ ৬৩ হাজার আট শত টাকা প্রদান করা হয়েছে।

এছাড়াও রাজস্ব, উন্নয়ন, বিশেষ ও ইউনিসেফ তহবিলের মাধ্যমে উপজেলায় ৩২ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে।

এছাড়াও স্বেচ্ছাসেবী ৫১টি সংগঠনকে দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন অনুদান। সমাজসেবার মাতৃত্বকেন্দ্র তহবিলের ১১ লাখ ৩৫ হাজার সাতশত টাকা ঋণ দেওয়া হয়েছে। উপজেলার প্রতিবন্ধীদের স্ব-নির্ভর করার জন্য ১৪ লাখ ৮৭ হাজার ৫৩০ টাকা ঋণ বিতরণ করা হয়েছে। উপজেলার পাঁচটি এতিম খানায় চলতি অর্থ বছরে আট লাখ দশ হাজার অনুদান দেওয়া হয়েছে। বিগত বছরেও একই হারে অনুদান দেওয়া হয়। একই অর্থ বছরে ১৯টি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে ২ লাখ ৮ হাজার টাকার অনুদান প্রদান করেছে বর্তমান সরকার। এছাড়াও উপজেলার ৪৬০ জনের মাাঝে ৬ কোটি ৯৭ লাখ ৬ হাজার ৫ শত টাকার সুদমুক্ত ক্ষুদ্রঋণ প্রদান করা হয়েছে সমাজসেবা কার্যালয়ের মাধ্যমে।

সমাজের অবহেলীত জনগোষ্ঠীকে যেন কারো কাছে মাথা ছোট করে বাঁচতে না হয় সে জন্যই এই উদ্যেঠস গ্রহণ করেছে আওয়ামীলীগ সরকার। এ সকল ব্যক্তিরা যাতে করে সমাজের বোঝা না হয় এবং তারাও যেন সমাজের সম্পদে পরিণত হয় সে লক্ষ্যে সরকারের এসব পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

এছাড়া গত দশ বছর ধরে একই লক্ষ্য নিয়ে সরকার মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মাধ্যমে বাগমারায় মহিলা বিষয়ক কার্যালয় বিভিন্ন জনসেবামূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করে চলেছেন। বর্তমান সরকারের আমলে ১০ হাজার ১৯৫ জন গরীব ও দুঃস্থদের মাঝে ভিজিডি কার্ড দেওয়া হয়েছে। এই ভিজিডি কার্ডের মাধ্যমে তারা নিয়মিত খাদ্য শস্য পেয়ে থাকেন। এছাড়াও উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নে দরিদ্র ৩ হাজার ৯ শত ৩৫ জনকে মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও গত ২০১৬ সাল থেকে উপজেলার ২টি পৌর সভায় চালু করা হয়েেেছ ল্যাকটেটিং মাদার সহায়তা ও স্বাস্থ্য ক্যাম্প। এতে করে পৌর সভার ৭ শত জন নারীকে ল্যাকটেটিং মাতার সহায়তা প্রদান করা সম্ভব হচ্ছে। গত দুই বছরে ভবানীগঞ্জ এবং তাহেরপুর পৌরসভায় ৭৮ লাখ ৬০ হাজার টাকার ল্যাকটেটিং মাদার সহায়তা দেয়া হয়েছে।

এসময়ে বাগমারার ১০২ জন মহিলাকে আত্মকর্মসংস্থানের জন্য ১২ লাখ ১১ হাজার টাকার ক্ষুদ্র ঋণ প্রদান করা হয়েছে। চলতি বছর আওয়ামীলীগ সরকার সমাজের পিছিয়ে পড়া মহিলাদের জন্য আয়বর্ধক প্রশিক্ষণ (আইজিএ) প্রকল্প চালু করেছে। এর মাধ্যমে ১২০ মহিলাকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও ২১৫ টি রেজিষ্টার্ড সমিতির মধ্যে ১৬৭টি স্বেচ্ছাসেবী মহিলা উন্নয়ন সমিতিকে ২৬ লাখ ৭১ হাজার টাকা অনুদান দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ৪৫২ জনকে এককালীন একটি করে সেলাই মেশিন দেওয়া হয়েছে। যাতে নিজ বাড়িতে বসেই তারা উপার্জন করতে পারেন।

বর্তমান সরকারের এসব অবদানের বিষয়ে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা এ কে এম ওয়াহিদুজ্জামান

বলেন, সমাজের অবহেলিদ মহিলাদের জন্য সরকার যে পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন তা খুবই গুরুত্বপূর্ন । এসব ভূমিকায় আজ অবহেলিত নারীরাও বিভিন্ন ভাবে কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং স্বাবলম্বী হয়েছেন । তাছাড়া বাগমারার সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামূল হকের প্রচেষ্ঠায় এসব কর্মসূচী সুষ্ঠ ভাবে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়েছে । অপর দিকে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল মমিন বলেন, বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সেবা মূলক কর্মসূচী বাস্তবায়নের ফলে বাগমারায় সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী এখন স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারছে । বাগমারায় এসব কিছু বাস্তবায়ন হয়েছে সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার এনামূল হকের কারনে ।