রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

অদম্য ফারহানার স্বপ্ন পূরণ

SONALISOMOY.COM
অক্টোবর ৭, ২০১৮
news-image

সাকিব আল রোমান : ফারহানা হোসেন। শরীয়তপুর জেলার চামটা ইউনিয়নের মোতাহার কণ্যা। স্কুল শিক্ষিকা মায়ের হাত ধরেই শিক্ষা জীবনের পথচলার শুরু। ক্লাস সিক্সে পড়া না পড়ে আসার জন্য উচ্চ মাধ্যমিকের ইসলাম শিক্ষা ক্লাস নেয়া শিক্ষকের বেত্রাঘাতে চুপিসারে কান্না করা মেয়েটি আজ শিল্পকলা সীজনশীল শিখা বিভাগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গার্হস্থ্য অর্থনীতি ইউনিট থেকে গ্র্যাজুয়েশন স্বীকৃতি পেয়েছেন। অানন্দের যেন কোন কমতি নেই আজ তার মাঝে। এর মাঝেই বৈবাহিক জীবনের পথচলা শুরু করেছেন।

আজ কথা হলো সেই ফারহানা হোসেন জেমীর সাথে তিনি জানান, আজকের এই দিনটিকে নিয়ে কত যে স্বপ্ন দেখেছি তা হয়তো বলে শেষ করা যাবে না। সেই স্কুল লাইফ থেকেই নিজেকে নিয়ে অনেকদূর যাওয়ার স্বপ্নটা আমাকে এক প্রকার অদম্য করে তুলেছিল। আমি সকল শিক্ষক ও শিক্ষিকাকে এর জন্য কৃতজ্ঞতা জানাই। কবিতা ম্যাডামকে আমার খুুব ভাল লাগতো। প্রায়ই স্বপ্নে দেখি তাকে। ফিরে যেতে ইচ্ছে করে সেই শহীদ স্মৃতির স্মৃতির খিভড়ে কিন্তু সবকিছুই তো চাইলেই পাওয়া যায় না। জীবন তো বহমান। আরও সামনে যেতে হবে বলেই অতিত কে হাইট করে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার প্রতিজ্ঞা।

নিজের অনুভূতি সম্পর্কে বলতে যেয়ে ফারহানা বলেন, নিজের অনুভূতিত তো আজ আকাশচুম্বি। যার পরিমাপ অসম্ভব। বাবা-মায়ের ভালবাসা না পেলে হয়তো এই সুখ অনুভব করার ভাগ্য হতনা। আমি সর্বদাই অামার বাবা-মাকে আমার স্বপ্ন পূরণের জন্য কৃতজ্ঞতা জানাই।

ভবিষ্যতে কি করার ইচ্ছে? এমন প্রশ্নে তিনি সোনালী সময়কে বলেন, ইচ্ছে আছে জব করব। যদি পসিবল না হয় তাহলে ব্যবসায়ী হয়ে যাওয়ার প্লান। ভবিষ্যতে অনাথ বৃদ্ধাশ্রম নিয়ে কিছু করার। এবং সব চিন্তার বাইরে সর্বপ্রথম বাবা-মায়ের জন্য কিছু করব।

উল্লেখ্য, ফারহানার বড় বোন ফারজানা হোসেনও গ্র্যাজুয়েশন করেছিল তাই তাদের পরিবারে আনন্দ বন্যা ও তার বাবা-মা বর্তমান পরিপূর্ণ ও সফল।