শুক্রবার, ২৫ অক্টোবর, ২০১৯

জনস্বাস্থ্য ও চিকিৎসায় দেশসেরা ২১ গবেষণা নির্বাচিত

SONALISOMOY.COM
অক্টোবর ২৫, ২০১৯
news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশের চিকিৎসা ও জনস্বাস্থ্য বিষয়ে ২১টি সেরা গবেষণা নির্বাচন করেছে ‘ক্লিনিক্যাল রিসার্চ প্ল্যাটফর্ম, বাংলাদেশ’। দেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত সায়েন্টিফক কংগ্রেস অন নন কমিউনিকেবল ডিজিজেসে অংশগ্রহণকারী চিকিৎসকদের মধ্য থেকে নির্বাচিত করা হয় এই গবেষণাকর্মগুলো। ২১-২২ অক্টোবর দু’দিনব্যাপী আয়োজন শেষে সম্মাননা প্রদান করা হয় গবেষকদের।

সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর কাজী শহিদুল্লাহ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কংগ্রেসের চেয়ার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া, বিএসএমএমইউ-এর প্রোভিসি (শিক্ষা) শাহানা আক্তার রহমান, আইসিডিডিআরবির এইচএসপিএসডি সিনিয়র ডিরেক্টর ড্যানিয়েল রিডপ্যাথ ও কংগ্রেসের কনভেনর ও আইসিডিডিআরবির নন-কমিউনিকেবল ডিজিজ ইনিশিয়েটিভ শাখার প্রধান ড. আলিয়া নাহিদ।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর কাজী শহিদুল্লাহ বলেন, আমাদের দেশে এখন নানা মাত্রায় গবেষণা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা এখন ভীষণ আগ্রহ নিয়ে গবেষণা করছেন। দেশে এ ধরনের কংগ্রেস আমাদের চিকিৎসকদের বহুমাত্রিক গবেষণা করতে মনোযোগী করে তুলবে। গবেষণা নিবন্ধ প্রকাশের মাধ্যমে গবেষকরা নিজেদের দক্ষতা যেমন বিকাশ করার সুযোগ পাচ্ছেন, তেমনি আমাদের নীতিনির্ধারণেও দিকনির্দেশনা পাওয়ার সুযোগ বাড়ছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমাদের দেশের স্বাস্থ্যখাতে অগ্রগতি চোখে পড়ার মতো। চিকিৎসকেরা যেমন দায়িত্ব পালন করছেন, তেমনি গবেষণাতেও মনোযোগ দিচ্ছেন। অসংক্রামক রোগের ওপর এত গবেষণা যে বাংলাদেশের চিকিৎসকেরা করছেন তা অবাক করে দেয়। এমন আয়োজন তরুণ চিকিৎসকদের ভিন্নমাত্রার গবেষণায় আগ্রহী করে তুলবে।

কংগ্রেসের চেয়ার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, চিকিৎসকরা অনেক পরিশ্রম করেন। দিনে ১৪-১৫ ঘণ্টা কাজ করেন অনেকেই। একদিকে চিকিৎসক হিসেবে দায়িত্বপালন অন্যদিকে গবেষণায় নিজেকে স্থির রাখা একটি চ্যালেঞ্জ। তরুণ গবেষকরা নিজের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি গবেষণায় ভীষণভাবে আগ্রহী হয়ে ওঠেছে। এ ধরনের কংগ্রেস শুধু তাদের অনুপ্রেরণাই দেয় না, দক্ষ চিকিৎসক হয়ে ওঠতে সহায়তা করে।

গ্রামের ডায়াবেটিক রোগীদের অবস্থান, দেশের সাধারণ মানুষের স্ট্রোকের ঝুঁকি প্রবণতা, দেশে স্টেম সেল গবেষণা, ভিটামিন ডি’র মাত্রায় সুপাড়ির প্রভাব, রিউম্যাটিক রোগের ইকোকার্ডিওগ্রাফিক অ্যাসেসমেন্টের মতো বিভিন্ন গবেষণা প্রবন্ধ ও পোস্টার সেরা হিসেবে সম্মাননা লাভ করে।