শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারি, ২০২৩

নাটোরে পুকুর কাটার মেসিন নিয়ে সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১৩

SONALISOMOY.COM
জানুয়ারি ২৬, ২০১৭
news-image

নাটোর প্রতিনিধি:

নাটোরে পুকুর কাটার মেসিন নিয়ে দু’পক্ষের সংগষে দুর্ই নারী সহ অন্তত ১৩ জন আহত হয়।  সদর উপজেলার বিপ্রোহালসা গ্রামে বুধবার রাতে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে ৭ জনকে নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, হালসা গ্রামের মৃত আহসান উল্লার ছেলের প্রায় ৬ বিঘা জমি পুকুর খননের জন্য গুরুদাসপুর উপজেলার আব্দুস সাত্তারের ছেলে বাবলু হোসেন ২ লাখ ৮০ হাজার টাকায় চুক্তিবদ্ধ করে। চুক্তি অনুযায়ী বাবলু হোসেন পুকুর কাটার জন্য এক্সিবিয়েটর (স্থানীয় ভাষায় ভেপু মেসিন) মেসিন ভাড়ায় এনে পুকুর খনন শুরু করে। কিন্তু অবৈধভাবে পুকুর খনন করায় ভ্রাম্যমান আদালত দু’দফায় তাকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করলে সেকেন্দার আলী সমুদয় টাকা পরিশোধ করেন। জমির মালিক ক্ষতিপুরন দাবী করেন বাবলু হোসেনের কাছে ।
এ নিয়ে বিরোধ বাধলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের মধ্যস্থতায় সুরাহার উদ্যোগ নেওয়া হয় এবং পুকুর খনন বন্ধ রাখা হয়। এদিকে খনন কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বাবলু হোসেন টাঙ্গাইল থেকে ভাড়ায় আনা মাটি কাটা যন্ত্র সরিয়ে নিতে গেলে  জমির মালিক সহ এলাকাবাসী বাধা দেয়। কয়েক দফা চেষ্টার বুধবার রাত ৯ টার দিকে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীসহ বাবুল হোসেন গোপনে ওই  মেসিন সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এসময় এলাকাবাসী বাধা দিলে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষের সময় বহিরাগত সন্ত্রাসীরা জমির মালিকের পরিবারের নারীদের ওপর চড়াও হয়ে মারপিট ও ছুরিকাঘাত করে। এসময় দুই নারী সহ ১৩ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে আব্দুস সামাদের স্ত্রী হনুফা (৩০), সোলেমানের স্ত্রী সালেহা (৩২),জহিরের ছেলে জামালা উদ্দিন (২৩),সোলেমানের ছেলে রহিম (৩০), খোরশেদের ছেলে মোজাম্মেল (৩০) মৃত মুনছেরের ছেলে জহুরুল (৩৫) ও আহম্মদের ছেলে ফজলুকে (৩২) রাতেই নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।
নাটোর সদর থানার ওসি মশিউর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,এঘটনায় থানায় অভিযোগ করেনি কোন পক্ষই।