রবিবার, ১৩ জুন, ২০২১

ফেসবুকে পরিচয় বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ মামলা করলেও গ্রেফতার হয়নি আসামী

SONALISOMOY.COM
এপ্রিল ২৯, ২০২১
news-image

বাগমারা প্রতিনিধি: দূরত্ব অনেক হলেও সেটাকে হার মানিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বেড়াজালে পড়ে ফেসবুক আইডিতে পরিচয় ঘটে সুমি আক্তার (২০) এবং আব্দুল্লাহ আল মাসুম ওরফে মুরাদের (২১)। ফেসবুক আইডির মাধ্যমে যোগাযোগের কিছু দিনের মধ্যে সুমির সাথে দেখা করতে যায় মাসুম। ২০১৮ সালে অনফঁষষধয অষ গধংঁস এবং ঊংরঃধ ঞধনধংঁস ঊংযধ নামের ফেসবুক আইডির মাধ্যমে তাদের পরিচয়।
দেখার পর থেকে তাদের প্রেমের সম্পর্কটা আরো গাড়ো হতে থাকে। বিয়ের কথা বলে সুমিকে নিজের কাছে ডাকে মাসুম। মাসুমের ডাকে সাড়া দিয়ে পরিবার পরিজন ছেড়ে চলে আসে সুমি। মাসুমের দেয়া ঠিকানায় রাজশাহীতে আসে সুমি। সেখানে থেকে সুমিকে সাথে নিয়ে চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি রাজপাড়া থানাধিন কেশবপুর মহল্লার বাসা নং ১৯৯ এর তিন তলা বাড়ির নিচতলায় উঠে মাসুম। বাড়িটি কার জানতে চাইলে মাসুম বলে তার বোনের। বিয়ের কথা বলে সেখানে রাতে সুমির ইচ্ছার বিরুদ্ধে শারীরিক সম্পর্ক ঘটায় মাসুম।
মাসুমকে বিয়ের কথা বললে পরের দিন সকালে বিয়ে করবেনা বলে রাজশাহী থেকে চলে যেতে চলে বলে সুমিকে। পরবর্তীতে বোয়ালিয়া থানার সুজানগর মহল্লায় এক নিকট আত্মীয়ের বাসায় উঠেন সুমি। তাদেরকে বিষয়টি জানায় সুমি। পরে ২৬ ফেব্রুয়ারি সুমি আক্তার বাদী হয়ে রাজপাড়া থানায় আব্দুল্লাহ আল মাসুম ওরফে মুরাদের বিরুদ্ধে ২০০০ সালের ৯ (১) ধারায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন এবং ২০০৩ সালের সংশোধনী আইনে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করার অপরাধে একটি মামলা দায়ের করেন।
সুমির বাড়ি ঢাকার আশুলিয়ার পলাশবাড়ী গ্রামে। সুমির পিতার নাম আবুল হোসেন। আর আব্দুল্লাহ আল মাসুম অরফে মুরাদের বাড়ি রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার মোহনগঞ্জ গ্রামে। মাসুমের পিতার নাম মকবুল হোসেন। বিয়ের প্রলোভনে তাদের সেই সম্পর্কটা ইচ্ছার বিরুদ্ধে শারীরিক সম্পর্কে গড়ায়। ফেসবুকে পরিচয়ের পর থেকে সুমির নিটক থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে মাসুম। সেই সাথে মাসুমের বোন জামাই পুলিশের চাকরী করার সুবাদে মাসুম ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছেন বলে অভিযোগ সুমির। আমাসী গ্রেফতার না হওয়ায় নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছেন সুমি।

সুমির বাড়ি মাসুমের বাড়ি আর থানা তিনটা তিন জায়গায় হওয়ার কারনে তেমন কোন কার্যকরী ফল হচ্ছেনা। সুমির দাবী আমি মেয়ে হওয়ার কারনে মামলার তদবির করতে ঢাকা থেকে নিয়মিত রাজশাহীতে আসা যাওয়া করা সম্ভব হচ্ছে না। আর মাসুমের বোন জামাই পুলিশ এবং রাজপাড়া থানার অন্তর্গত হওয়ার কারনে সর্বদায় পুলিশে থানার সাথে তার একটা যোগাযোগ রয়েছে।

প্রতারণা করে ফেসবুকের পরিচয়ে তিন বছর প্রেমের সম্পর্ক ঘটিয়ে বিপুল পরিমান অর্থ হাতিয়ে নেয়া সহ শারীরিক সম্পর্ক করেছে মাসুম। মাসুম মোহনগঞ্জে তার নিজ এলাকায় দিব্যি খুরাফেরা করলেও তাকে ধরছেনা পুলিশ। দীর্ঘ দিন পার হলেও মাসুম গ্রেফতার না হওয়ার মানুষিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন সুমি। সুমির দাবী দ্রুত মাসুমকে গ্রেফতার করে আইনের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ব্যবস্থা করা হোক। এ ব্যাপারে বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাক আহম্মেদ জানান, ঘটনাটি শুনেছি, যেহেতু এটি নিয়ে রাজপাড়া থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীর বিরুদ্ধে চার্জশীট হলে তাকে অবশ্যই গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাতে প্রেরণ করা হবে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রাজপাড়া থানার সব ইন্সপেক্টর মকবুল হোসেন বলেন, আসামীকে গ্রেফতার করতে এরই মধ্যে দুই বার বাগমারায় গেলেও তাকে পাওয়া যায়নি। করোনার কারনে আগের মতো কাজ করা সম্ভব হচ্ছেনা। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে দ্রুত তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।