সোমবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০২২

দেশে যাত্রা শুরু করলো মনস্টারল্যাব এন্টারপ্রাইজ সল্যুশনস

SONALISOMOY.COM
জানুয়ারি ৫, ২০২২
news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক: মনস্টারল্যাব হোল্ডিংস, ইনকর্পোরেশন, পৃথিবীর ৩০ টি শহরের প্রতিভাকে কাজে লাগিয়ে এখন বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করেছে। এই গ্লোবাল ডিজিটাল কনসালটেন্সি প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশে বিজনেস প্রোসেস আউটসোর্সিং (বিপিও) পরিসেবা প্রদানের উদ্দেশ্যে মনস্টারল্যাব এন্টারপ্রাইজ সল্যুশনস (এমএলইএস) নামে একটি নতুন কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছে।

মনস্টারল্যাব গ্রুপের ‘গ্লোবাল ফিন্যান্সিয়াল শেয়ার্ড সার্ভিস সেন্টার’ থেকেই জন্ম হয়েছে এমএলইএস’য়ের। সক্রিয়ভাবে ‘রোবোটিক প্রসেস অটোমেশন (আরপিএ)’ এবং বিভিন্ন ‘আইটি প্ল্যাটফর্ম’ ব্যবহার করে ‘অ্যাকাউন্টিং’, ‘বিজনেস ম্যানেজমেন্ট’, ‘ফাইন্যান্স’, ‘লিগাল’ এবং ‘হিউম্যান রিসোর্স’ বিভাগের কাজ করে দেবে এই প্রতিষ্ঠানটি। অদূর ভবিষ্যতে প্রতিষ্ঠানটি ফিলিপাইনে তাদের ব্যবসা সম্প্রসারণের পরিকল্পনা করছে।

মনস্টারল্যাব হোল্ডিংস, ইনকর্পোরেশন-এর গ্রুপ সিএফও ইওশিহিরো নাকাহারা বলেন, “প্রতিভাবান বাংলাদেশীদের মাঝে আছে সীমাহীন সম্ভাবনা ও কাজের প্রতি একাগ্রতা। এমএলইএস’য়ের হাত ধরে সেই সম্ভাবনাকে উন্নতির শিখরে নিয়ে যেতে এবং দেশ বিদেশে পেশাজীবি, কার্যকরী ও কুশলী সেবা দিতে আমরা প্রতিশ্রতিবদ্ধ।”

মনস্টারল্যাব এন্টারপ্রাইজ সল্যুশনস-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজুকি নাকায়ামা বলেন, “বাংলাদেশের ডিজিটাল চিন্তার নেতৃত্বদানকারী প্রতিভাবান ব্যাক্তিদের সাথে কাজ করার জন্য আমি অনেক উৎসাহী। এমএলইএস-এর নতুন পরিসেবার মাধ্যমে ও আমাদের আইটি দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে পার্টনার এবং ক্লায়েন্টদের যথাযথ মূল্যায়ন করে কোম্পানির বৃদ্ধিসাধনে আমরা কাজ করে যাবো।”

মনস্টারল্যাব এন্টারপ্রাইজ সল্যুশনস লিমিটেড-এর উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক আর খান দীপ্ত বলেন, “এমএলইএস প্রতিষ্ঠা বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির যাত্রায় একটি শক্তিশালী অর্জন। ২০২১ সালে বাংলাদেশে যখন জিএফএসএসসি প্রতিষ্ঠা হয়, আমি তখন এর একমাত্র সদস্য ছিলাম। সেই থেকে আজ পর্যন্ত আমরা বাংলাদেশ এবং ফিলিপাইন মিলে মোট ৩১ জন (২৭ জন বাংলাদেশি এবং ৪ জন ফিলিপিনি) প্রতিভাবান হিসাবরক্ষকের একটি দলে পরিণত হয়েছি। আমাদের এই দল গ্রুপের অধীনস্থদের পাশাপাশি ক্লায়েন্ট ও পার্টনারদের বিস্তৃত আর্থিক পরিসেবা প্রদান করতে সক্ষম।”

২০১৭ সাল থেকে মনস্টারল্যাব উচ্চশিক্ষা ও প্রযুক্তিগত দক্ষতা সরবরাহের মাধ্যমে দেশ ও দেশের ক্রমবর্ধমান তরুণ প্রতিভাবানদের পাশে রয়েছে। ২০১৯ সালে বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ৬৩.২ শতাংশ ছিল ২৯ বছর বা তার কম বয়সী। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এই সংখ্যা বাড়বে, সেইসাথে বৃদ্ধি পাবে কর্মসংস্থানের চাহিদা। এমএলইএস বাংলাদেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরির মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক ভারসাম্য বজায় রাখতে ভূমিকা রাখবে। এছাড়া প্রতিষ্ঠানের মানবসম্পদ উন্নয়ন ও জ্ঞান একত্রিত করে অপারেশনাল এক্সিলেন্স বৃদ্ধিও এমএলইএস-এর অন্যতম লক্ষ্য।

 

sonalisomoy